বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নওগাঁর মান্দায় নিয়ম-বহির্ভূত রেজুলেশন ছাড়াই উপজেলার একটি প্রাথমিক স্কুলের টিন বিক্রির অভিযোগ আর্তনাদ করা সেই পরিবারের পাসে IGNITE THE NATION ঘূর্ণিঝড় রেমালের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত শরণখোলা ও সুন্দরবন নওগাঁর শৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদের ২০২০০৪-২০২৫ অর্থবছরের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা নরসিংদী মেহেরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে হত্যা কালাইয়ে সহিদুল হত্যা মামলায় দশজনের যাবজ্জীবন আশুলিয়ায় ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয় দানকারীকে আটক করেছে আশুলিয়া থানা পুলিশ আকাশে মেঘ জমলেই থাকছে না বিদ্যুৎ, অতিষ্ঠ গ্রাহকরা কোটচাঁদপরে বৃদ্ধের আয়ের উৎস মুদি দোকান পুড়ে ছাই সেপটিক ট্যাংক থেকে এমপি আনারের মরদেহের ‘খণ্ডিত অংশ’ উদ্ধার
হুমকির মুখে সমুদ্র, থাকবে না আর কোনো মাছ

হুমকির মুখে সমুদ্র, থাকবে না আর কোনো মাছ

ডেস্ক নিউজ: অতিরিক্ত মাছ ধরা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্লাস্টিকের দূষণের কারণে বিশ্বের সাগর-মহাসাগর এখন হুমকির মুখে৷ তাই ‘ব্লু ইকোনমি’-র মাধ্যমে সমুদ্র সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷

মেক্সিকোতে ৭ই মার্চ থেকে ৯ মার্চ অনুষ্ঠিত হলো বিশ্ব সমুদ্র সম্মেলন, যেখানে বিশেষজ্ঞদের পাশাপাশি বিশ্বের ব্যবসায়ী এবং রাজনীতিবিদরাও হাজির হয়েছিলেন৷ প্রতি বছর মূলত এতে আলোচনা হয় সাগরকে ঘিরে কীভাবে অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করা যায়৷ কিন্তু এবার বক্তাদের কথায় উঠে এলো কীভাবে সমুদ্র সম্পদ রক্ষা করা যায় এবং সাগরকে বাঁচানো যায়৷

মূলত ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সাগরকে রক্ষা করার বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উঠে আসে আলোচনায়৷ এই পরিকল্পনার নাম দেয়া হয় ‘ব্লু ইকোনমি’ বা নীল অর্থনীতি৷ বিশেষজ্ঞ আলেকজান্ডার কস্তো বলেন, ‘‘নীল অর্থনীতি আমাদের খাদ্য নিরাপত্তা, মানুষের স্বাস্থ্য এবং পরিবেশকে রক্ষায় ভূমিকা রাখবে৷” যেসব মানুষের জীবিকা সাগর-নির্ভর, তাদের জন্য পদক্ষেপ নেয়া হবে এর মাধ্যমে৷

বিশ্বের অন্তত একশ’ কোটি মানুষ মৎস বা মাছের উপর নির্ভরশীল৷ আর কিছু ছোট দ্বীপ রাষ্ট্র রয়েছে, যারা কেবল মাছ খেয়েই বেঁচে থাকে৷ এমনটাই জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা৷ বিশ্ব ব্যাংকের পরিবেশ বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা ক্যারিন ক্যাম্পার জানালেন, ‘‘অতিরিক্ত মাছ ধরার কারণে সমুদ্রের জীববৈচিত্রে অসামঞ্জস্যতা দেখা দিচ্ছে এবং খাদ্য নিরাপত্তা পড়ছে ঝুঁকির মুখে৷”

জলবায়ু পরিবর্তনেরকারণে সমুদ্রের পানির তাপমাত্রা বেড়ে যাচ্ছে, অম্লতা বাড়ছে, যা প্রবালের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ বলা বাহুল্য, এই প্রবালপ্রাচীর মাছেদের অন্যতম আবাসস্থল৷ তাই মাছ তাদের আশ্রয় হারাচ্ছে৷

মাছ কমে যাওয়ার আরো একটি বড় কারণ হলো প্লাস্টিক দূষণ৷ সাগরে প্লাস্টিকের পরিমাণ এত বেড়ে গেছে যে, তা পরিষ্কার করতে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হচ্ছে৷ বিশ্বের অন্যান্য জলাশয় থেকে যে পরিমাণ মাছ ধরা হয়, সাগর থেকে ধরা হয় তার চারগুণ৷

অ্যাকোয়াকালচার হতে পারে সাগরের মাছের বিকল্প৷ এরই মধ্যে বিশ্বের প্রায় অর্ধেক ‘সি ফুড’ অ্যাকোয়াকালচারের মাধ্যমে সরবরাহ হয়৷ ফলে এর মাধ্যমে সমুদ্রের মাছের উপর থেকে চাপ কমানো যেতে পারে৷ সমালোচকরা অবশ্য বলছেন, এই পদ্ধতিতে পরিবেশ দূষণ আরও বাড়বে এবং জীববৈচিত্রের জন্য এটি আরো একটি হুমকি হয়ে দাঁড়াবে৷ তাই ব্লু ইকোনমির মাধ্যমে উপকূলীয় এলাকাগুলোকে রক্ষা এবং সংরক্ষণ করার উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা৷

ভালো লাগলে নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2011 VisionBangla24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com